৫৫ বছর পর চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথ চালু

প্রায় ৫৫ বছর পর বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথ আবারও চালু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভিডিও কনফারেন্সে রেলপথটির উদ্বোধন করেন।

বৃহস্পতিবার ঢাকার গণভবন থেকে শেখ হাসিনা এবং দিল্লিতে নিজ দপ্তর থেকে নরেন্দ্র মোদি বৈঠকে অংশ নিয়েছেন। দুই নেতা সীমান্তে শান্তি, করোনা সঙ্কটে পারস্পরিক সহযোগিতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করছেন।

বৈঠকের আগে দুই দেশের মধ্যে সাতটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। এরপর বৈঠক শুরুর হলে নীলফামারীর চিলাহাটী-পশ্চিমবঙ্গের হলদিবাড়ি লাইনে ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করেন দুই দেশের সরকারপ্রধান।

১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট পাক-ভারত বিভক্তের পরও এ পথে রেল চালু ছিল। সে সময়ে এ পথে দুই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলাচল করত যাত্রী ও মালবাহী ট্রেন। ১৯৬৫ সালে পাকিস্তান-ভারত যুদ্ধের পর বন্ধ হয় দুই দেশের মধ্যে রেল চলাচল। পরিত্যক্ত রেলপথটি চালুর উদ্যোগ নেন শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি সরকার।

গত ৮ অক্টোবর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভারতের কুচবিহার জেলার হলদিবাড়ি সীমান্ত রেলস্টেশন পেরিয়ে ইঞ্জিনটি বাংলাদেশ সীমান্তে পৌঁছে। সেখানে ১০ মিনিট অবস্থানের পর পুনরায় ছেড়ে যায় হলদিবাড়ির উদ্দেশ্যে। পরে ওই সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় রেলবিভাগের কর্মকর্তারা স্থানীয় জনগণের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

গত ২৭ অক্টোবর দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে চিলাহাটি রেলস্টেশন থেকে ৬ দশমিক ৭২৪ কিলোমিটার ভারত-বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক সীমান্তের (জিরো ল্যান্ড) বাংলাদেশে রেলওয়ের ইঞ্জিনের মহড়া অনুষ্ঠিত হয়।

চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথ উদ্বোধন দেখতে দুই দেশের উভয়পাশে ভিড় করেছেন হাজারো উৎসুক মানুষ। তারা দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন দীর্ঘ প্রতীক্ষিত রেলপথ চালু দেখতে। দুই দেশের মানুষ উপভোগ করেন স্বপ্নপূরণের সন্ধিক্ষণের দৃশ্যটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *