‘এখনো সবাই সেক্স আর সাহসকে গুলিয়ে ফেলেন’

ওপার বাংলার লাস্যময়ী অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখার্জি বেশ ব্যস্ত সময়ই পার করছেন। দেখতে দেখতে জীবনের ৩৯ বসন্ত পার করে সদ্য পা রাখলেন ৪০-এ। তবে নিজের বয়সের কথা মনে হলে কেবলই অবাক লাগে এই অভিনেত্রীর। সম্প্রতি ভারতীয় গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি।

 

চলতি বছরটা স্বস্তিকার জন্য কতটা স্বস্তির ছিলো? এমন প্রশ্নে তার উত্তর, ভীষণ কঠিন একটা বছর। এই বছরেই জাতীয় স্তরে আমার এতগুলো কাজ মুক্তি পেল। এই বছরেই আমি আবার ‘চরিত্রহীন’ হলাম! (হাসতে হাসতে) পার্ট অফ এ জোক। ক্যারিয়ারের দিক থেকে এত গুরুত্বপূর্ণ বছর হয়ে দাঁড়াবে ২০২০, ভাবতেই পারিনি। বরং, অন্য বছরের তুলনায় এই বছর বেশি কাজ করলাম। ৬ মাস কাজ না করেও। এক এক সময় মনে হচ্ছে, বাবা উপরে গিয়ে নির্ঘাৎ কলকাঠি নাড়িয়েছেন। তাই সব কাজ ঝরঝরিয়ে আমার ঝুলিতে এসে পড়ছে।

 

আবারও বোল্ড হয়ে আসা প্রসঙ্গে স্বস্তিকা বলেন, আমি বলবো, সুদীপ্ত রায়ের ‘তাসের ঘর’ আরও বেশি বোল্ড, সাহসী। ওখানে আমি একা একটা ছবি টেনে নিয়ে গিয়েছি। ভাল-মন্দ সব আমার ঘাড়ে ছিল। সারাক্ষণ ক্যামেরার সঙ্গে আমাকে কথা বলে যেতে হয়েছে। যা আমরা একেবারেই করি না। বিষয়টাও সাহসী। এটা বেশি সাহসিকতার না ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করা? সত্যিই খুব কঠিন ছিল জার্নিটা। আসলে এখনো মানুষ ‘সাহস’ আর ‘সেক্স’কে গুলিয়ে ফেলেন। একটা চুমু খেলেই সাংঘাতিক সাহসী। আসলে, ‘চরিত্রহীন’-এর সঙ্গে যেহেতু একটা শরীরী গন্ধ আছে চিত্রনাট্যের খাতিরে, লোকে তাই এ কথাই বলবেন। ভাববেনও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *