৯ বাসে আগুন : আসামি বিএনপি, ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ৯টি বাস পোড়ানোর মামলায় আসামি করা হয়েছে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের। এতে যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের আসামি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর রাতে ও আজ সকালে পুলিশ বাদি হয়ে এই মামলাগুলো দায়ের করে। এসব মামলায় আসামি করা হয়েছে ৪৪৬ জনকে। রাতেই আটক করা হয়েছে ২০ জনকে। আসামিদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

এ ঘটনায় মতিঝিল থানায় দু’টি মামলা, শাহবাগ থানায় দু’টি, পল্টন থানায় দু’টি, বংশাল থানায় একটি, ভাটারা থানায় একটি ও কলাবাগান থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। মতিঝিল থানায় করা মামলায় আসামিদের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের গত নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ইশরাক হোসেনকে আসামি করা হয়েছে। এছাড়াও বিভিন্ন মামলায় আসামি করা হয়েছে, যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুল ইসলাম নিরব, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুকে।
ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের আহবায়ক রাকিবুল ইসলাম রাকিব, যুগ্ম আহবায়ক আক্তার হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সদস্য সচিব আমান উল্লাহ আমান, ছাত্রদলের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাবেক সভাপতি আল মেহেদি হাসানসহ ছাত্রদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আসামি করা হয়েছে বাস পোড়ানোর মামলায়।

এছাড়া আসামিদের মধ্যে রয়েছেন, যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ আহমেদ মিলন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলী আশরাফ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান সোহেল, সাব্বির আহমেদ দিপু, সাবেক কাউন্সিলর খাজা হাবিব, শাহবাগ থানা যুবদলের সহ-সভাপতি মুকুল মুন্সী, স্বেচ্ছাসেবক দলের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি এস এম জিলানী, সহ-সভাপতি এমদাদুল হক এমদাদ, সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইন ও বিস্ফোরক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলাগুলো করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার ওয়ালিদ হোসেন জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার ও আজ শুক্রবার এসব মামলা করা হয়। এসব মামলায় মোট ২০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আসামিদের মধ্যে মতিঝিলে একজন, শাহবাগে ছয় জন, পল্টনে নয় জন, বংশালে দুই জন ও কলাবাগানে দুই জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এসব বিষয়ে ডিএমপি’র অতিরিক্ত কমিশনার ও সিটিটিসি’র প্রধান মনিরুল ইসলাম বলেন, যেহেতু আগুন দেয়ার সময় কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি তাই কারা আগুন দিয়েছে তা তদন্ত করে জানা যাবে। তবে বিএনপি, ছাত্রদল গতকাল বসুন্ধরা এলাকায় মিছিল করেছে। এ সময় তারা গাড়ি ভাংচুর করে। তখন দু’জনকে আটক করা হয়েছে। জাতীয় প্রেসক্লাব ও নয়াপল্টন এলাকাতেও মিছিল করেছে তারা। এরপরই মূলত আগুন দেয়ার ঘটনা ঘটে। তাই অগ্নিসংযোগের ঘটনায় তাদের সম্পৃক্ততা থাকতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টার মধ্যে একে একে ৯টি বাসে অগ্নিসংযোগ করে দুর্বৃত্তরা। দুপুর ১২টার থেকে বিকাল সাড়ে ৪টার মধ্যে এসব অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। যেসব বাসে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে, সর্বোচ্চ ১২-১৪ জন যাত্রী ছিলো। তবে কারা অগ্নিসংযোগ করেছে এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

seven + 18 =

Translate »