অপরাজনীতির কারণেই দিনদিন জনবিচ্ছিন্ন হচ্ছে বিএনপি

‘সরকার নয়, বিএনপি নিজেদের অপরাজনীতির কারণেই দিনদিন জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ।

বুধবার দুপুরে (২৮ অক্টোবর) রাজধানীর সংসদ ভবন এলাকায় সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে গাবতলী ট্রেনিং সেন্টার উদ্বোধনের সময় এ মন্তব‌্য করেন তিনি।

‘উদ্দেশ্যহীন এবং মিথ্যাচারের’ রাজনীতির কারণে বিএনপিকে দেশের রাজনীতিতে ক্রমশ অপ্রাসঙ্গিক করে তুলেছে মন্তব‌্য করে বিরোধী দলের কি ভূমিকা হওয়া উচিত,তা জানতে আওয়ামী লীগের অতীত দেখার পরামর্শ দিয়েছেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

কাদের বলেন, নির্বাচনে তারা অংশ নেয় লোক দেখানো। ভোটের দিন কেন্দ্রে আসে না। এজন্য তারা ভোটারদের আস্থা হারাচ্ছে। আন্দোলনের ডাক দিয়ে নেতারা ঘরে বসে থাকে, এতে কর্মীদের আস্থা হারাচ্ছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে গণমাধ্যমে বক্তব্য বিবৃতি দিয়ে বেড়াচ্ছে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যহীনতা এবং চিরাচরিত মিথ‌্যাচার বিএনপিকে ক্রমশ দেশের রাজনীতিতে অপ্রাসঙ্গিক করে তুলেছে। তারা নিজেরাই করছে,সরকার নয়।

সরকার বিরাজনীতিকরণে বিশ্বাসী নয় জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন,‘আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাও এক এগারোতে এই বিরাজনীতিকরণের টার্গেট হয়েছিলেন। আমরা এদেশের মাটি ও মানুষের সঙ্গে মিলে রাজনীতি করি। আমরা ষড়যন্ত্রে বিশ্বাস করি না। আমরা ষড়যন্ত্রের টার্গেট হই। এটাই আওয়ামী লীগের ইতিহাস। ’

গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে শক্তিশালী করতে সরকার বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো সক্রিয় ভূমিকা প্রত্যাশা করে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে কিংবা উপ-নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়নে বিএনপির মনোনয়ন বাণিজ্য,গন্তব্যহীন রাজনীতি, নেতৃত্ব সংকট,নেতৃত্বের প্রতি কর্মীদের আস্থাহীনতা,অনেক সিনিয়র নেতা দলের বিরুদ্ধে কথা বলছেন,নিজেদের নিষ্ক্রিয় রাখছেন,রাজনীতিবিমুখ হচ্ছেন। দলের অনেকেই নেতৃত্বকে বলছেন কোমড়ভাঙা রাজনীতি। বিএনপি নিজেই নিজেদের রাজনীতিবিমুখ করে তুলেছে।’

বিএনপির নির্বাচনে অংশ নেওয়ার পেছনে ‘অপরাজনীতি’ থাকে দাবি করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন,‘বিএনপির নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্তকে আমরা বারবার স্বাগত জানিয়েছি। কিন্তু নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে তাদের অংশগ্রহণ তা জনগণ বুঝে গেছে। আন্দোলনের ব্যর্থতার চাপ তাদের নির্বাচনেও ভর করেছে।’

আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে ছিলো অনেক দিন। আমি বিএনপি নেতাদের বলবো,বিরোধীদলের কি ভূমিকা থাকা উচিত দেশের রাজনীতিতে সেটা জানতে আওয়ামী লীগের অতীত ভূমিকা দেখুন। তাহলে নিজেদের ব্যর্থতা চিহ্নিত করা সহজ হবে, বলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

ঢাকা-১৮ আসনে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে বিএনপির আন্তঃকোন্দলের বহিঃপ্রকাশের উদাহরণ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন,‘এ নিয়ে নিজেরা নিজেদের সঙ্গে কতোবার মারামারি করেছে বিএনপি। এমনকি দলীয় মহাসচিবের বাসায় পর্যন্ত হামলা করেছে মনোনয়নবঞ্চিত নেতাকর্মীরা। কোথায় সাংগঠনিক শৃঙ্খলা তাদের?’

বিএনপি নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে সরকারের ওপর দোষ চাপায় মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘নিজেদের নেত্রীর মুক্তির জন্য তারা রাজপথেও ব্যর্থ,আইনি লড়াইয়েও ব্যর্থ হয়েছে। শেখ হাসিনার সাহসিকতায় খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করা হয়েছে। এটি প্রধানমন্ত্রীর উদারতা, বিএনপির কোনো কৃতিত্ব নয়। বিএনপি নেতারাই বিএনপির রাজনীতিকে কোমড়ভাঙা রাজনীতি বলে আখ্যায়িত করেছেন। ’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

nine − three =

Translate »