মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সার্ভিস চার্জ গ্রাহককে অগ্রিম জানানোর নির্দেশ

দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে লেনদেনের সার্ভিস চার্জ আগেভাগেই গ্রাহককে জানানোর নিদের্শনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। মোবাইল ব্যাংকিং কোম্পানিগুলো গ্রাহকের অজান্তে যেন ইচ্ছামত সার্ভিস চার্জ নিতে না পারে সেজন্য এই নিদের্শনা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।

 

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোরব) বাংলাদেশ ব্যাংকের পেমেন্ট সিস্টেমস ডিপার্টমেন্ট থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়েছে। কার্যরত সব মোবাইল আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের (এমএফএস) প্রধান নির্বাহীদের কাছে এ সংক্রান্তএকটি চিঠি পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চিঠিতে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসের (এমএফএস) পরিষেবাগুলোর ধরন ও সার্ভিস চার্জ/মাশুল সম্পর্কে গ্রাহকদেরকে যথাযথভাবে অবহিত করতে বলা হয়েছে।

 

জানা গেছে, বর্তমানে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে বেশকিছু মোবাইল ব্যাংকিং অনুমোদন নিয়ে নিজেদের মত সার্ভিস চার্জ ধার্য করেছে কোম্পানিগুলো। এতে একদিকে যেমন গ্রাহক প্রতারিত হচ্ছেন অন্যদিকে ভোগান্তিতেও পড়ছেন। এই ভোগান্তি দূর করতে এবং মোবাইল ব্যাংকিংয়ের টাকা পাঠানোসহ বিভিন্ন সেবার কত চার্জ তা আগেভাগেই গ্রাহককে জানানোর জন্য নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের লেনদেনের বিদ্যমান চার্জ তুলনামূলক বেশি। ইউটিলিটি বিল, বেতন পরিশোধ, সরকারি যে কোনো পরিসেবার ক্ষেত্রে লেনদেন মোবাইল ব্যাংকিংয়ে করা হচ্ছে।

 

দ্রুত টাকা লেনদেনের ভরসা মোবাইল ব্যাংকিং। দেশের একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে সহজেই টাকা পাঠানো যায় বলে এটি সর্বসাধারণের কাছে বেশ জনিপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে কোম্পানিগুলো সার্ভিস চার্জ দেয়। তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে লেনদেনে সার্ভিস চার্জ কামানোর দাবি তুলেছেন গ্রাহকরা। দেশে সাড়ে তিন কোটি মানুষ নিয়মিত মোবাইল ব্যাংকিং সেবা ব্যবহার করছেন। আর সেবার জন্য নিবন্ধিত গ্রাহক প্রায় আট কোটির ওপরে। যা দেশের মোট জন সংখ্যার প্রায় ৪৫ শতাংশ। লেনদেনে প্রতি হাজারে ২০ টাকা পর্যন্ত মাসুল দিতে হয়। এর পরও দৈনিক এক হাজার ৩০০ কোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে এ সেবার মাধ্যমে।

 

বাংলাদেশে কার্যরত সকল মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) প্রোভাইডারদের কাছে পাঠানো ওই সার্কুলারে বলা হয়, যেকোনো পরিষেবা প্রদানের পূর্বে পরিষেবার ধরন, পরিষেবার জন্য প্রযোজ্য সার্ভিস চার্জ/মাসুলের পরিমাণ এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে সার্ভিস চার্জের তালিকা এবং Frequently Asked Question (FAQ) প্রস্তুত করে সে সম্পর্কে গ্রাহকগণকে যথাযথভাবে অবহিত করার উদ্দেশে সংশ্লিষ্ট তথ্যাদি নিজস্ব ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ্লিকেশনে প্রদর্শন করতে হবে।

 

পরিষেবার ধরন, সার্ভিস চার্জ/মাসুলের হার পরিবর্তনের ক্ষেত্রে গ্রাহকগণকে অগ্রিম নোটিফিকেশন প্রেরণের মাধ্যমে অবহিত করতে হবে। সার্ভিস চার্জ/মাসুল হার সংক্রান্ত বিভ্রান্তি পরিহারে বিভিন্ন গণযোগাযোগ (সংবাদপত্র, পত্রিকা, রেডিও, টেলিভিশন, ইউটিউব চ্যানেল ইত্যাদি) এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, লিংকডইন ইত্যাদি) প্রচার প্রচারণাসহ সকল ক্ষেত্রে ভ্যাটসহ সার্ভিস চার্জ/মাসুল হার উল্লেখ করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *