বাংলাদেশে রেলওয়ের ইতিহাস (প্রথম পর্ব)

বিশ্বযুদ্ধের অব্যবহিত পরে মোটরযান শিল্প এবং অটোমোবাইল শিল্পের ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত হলে রেলশিল্পে ভাটা পড়ে। কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তেল ও জ্বালানির দাম বৃদ্ধি, বৈশ্বিক ভূমণ্ডলীয় তাপমাত্রা বৃদ্ধি, বাতাসে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ বৃদ্ধি এবং যানজট ইত্যাদির কারণে রেলশিল্পে আবার বিনিয়োগ বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। পাশাপাশি আধুনিক ও বিলাসবহুল রেলওয়ে ব্যবস্থা আবিষ্কারের ফলে জনপ্রিয়তাও অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে।

ভারতবর্ষে রেলওয়ে

অন্যান্য ঔপনিবেশিক অঞ্চলের মতো ভারতবর্ষেও রেলওয়ে এসেছে ব্রিটিশদের হাত ধরে। উপমহাদেশে ততদিনে ব্রিটিশ শাসন গেঁড়ে বসেছে। ব্রিটিশ কোম্পানিগুলো এদেশে একচেটিয়াভাবে ব্যবসা করে যাচ্ছে। কিন্তু যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি না হওয়ায় বাণিজ্যিকভাবে খুব একটা সুবিধা করতে পারছিল না তারা। ততদিনে ইউরোপে রেলপথ আবিষ্কারের ফলে শিল্পখাতে এক বিপ্লব ঘটে যায়। একটা দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য কিংবা শিল্পায়নের চাবিকাঠি হলো উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা। তাই শিল্পখাতে উন্নয়ন করার জন্য ভারতবর্ষে রেলপথ নির্মাণ জরুরি হয়ে পড়েছিল।

ঊনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে ইউরোপে রেল বিপ্লব সংঘটিত হলে শিল্প-বাণিজ্য এবং ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে এক যুগান্তকারী পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়। সেই সুবিধাদি বিবেচনায় ব্রিটিশ সরকার ভারতীয় উপমহাদেশে রেলপথ স্থাপন নিয়ে পরিকল্পনা করতে থাকেন। এই পরিকল্পনা যতটা না ছিল এদেশের মানুষের সুবিধার জন্য, তার থেকে বেশি জড়িত ছিল ব্রিটিশদের রাজনৈতিক ও ভৌগোলিক সুবিধা এবং তাদের ব্যবসায়িক স্বার্থ।

১৮৩২ সালে ইংল্যান্ডে সর্বপ্রথম ভারতবর্ষে রেলপথ নির্মাণের জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। তবে পরবর্তী প্রায় এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এ পরিকল্পনা আলোর মুখ দেখেনি। সে সময় ব্রিটিশ রাজা ছিলেন চতুর্থ উইলিয়াম। এরপর ১৮৪৪ সালের ২৩শে জুলাই, ভারতীয় উপমহাদেশের গভর্নর জেনারেল হিসেবে নিযুক্ত হন লর্ড হেনরি হার্ডিঞ্জ। যেহেতু ব্রিটিশ সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় ভারত উপমহাদেশে রেলপথ আলোর মুখ দেখছে না, সেহেতু লর্ড হেনরি হার্ডিঞ্জ ক্ষমতা গ্রহণ করেই বেসরকারি সংস্থাগুলোকে তাদের নিজেদের সুবিধায় রেলপথ নির্মাণের অনুমতি প্রদান করেন।

ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এবং পরবর্তী সময়ে ব্রিটিশ সরকার নতুন নতুন রেলওয়ে কোম্পানিকে ভারতবর্ষে রেলপথ নির্মাণের জন্য উৎসাহ প্রদান করেন। একটি স্কিমের আওতায় জমি অধিগ্রহণ শুরু হয়। শুরুর বছরগুলোতে ব্রিটিশ সরকারের পক্ষ থেকে পাঁচ শতাংশ পর্যন্ত বার্ষিক মুনাফা নিশ্চিত করা হয়। কোম্পানিগুলো ৯৯ বছরের লিজে রেলপথ নির্মাণ ও পরিচালনা করতে থাকে। অবশ্য সরকারেরও সুযোগ রাখা হয় নির্দিষ্ট সময়ের পূর্বেই সেগুলো কিনে নেবার।

ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি গঠন করার পর এই কোম্পানিকে পশ্চিমবাংলার হাওড়া থেকে কয়লা খনি সম্পৃদ্ধ শহর রানীগঞ্জ শহর পর্যন্ত প্রায় ১২১ মাইল রেলপথ নির্মাণের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি গঠনের মূলে ছিলেন রাওল্যান্ড ম্যাকডোনাল্ড স্টিফেনসন। পরে তাকে সেই কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। কোম্পানির প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন জর্জ টার্নবুল।

এদিকে ১ আগস্ট, ১৮৪৯ সালে লন্ডনে প্রতিষ্ঠা করা হয় গ্রেট ইন্ডিয়ান পেনিনসুলা রেলওয়ে কোম্পানি। গ্রেট ইন্ডিয়ান পেনিনসুলা রেলওয়ে কোম্পানির সদর দপ্তর ছিল লন্ডনে। মূলত মুম্বাই থেকে থানে পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের জন্যই প্রতিষ্ঠা করা হয় গ্রেট ইন্ডিয়ান পেনিনসুলা রেলওয়ে কোম্পানি। এ কোম্পানি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরপরই মুম্বাই থেকে থানে পর্যন্ত প্রায় ৩৩ কিলোমিটার পরীক্ষামূলক রেললাইন নির্মাণকাজ শুরু করে দেয়। উল্লেখ্য যে, ১৮৫১ সালের ২২ ডিসেম্বর ভারতে প্রথম রেল চালু হয়। রুরকিতে স্থানীয় একটি খাল নির্মাণকার্যে মালপত্র আনা-নেওয়া করার জন্য ট্রেনটি চালু করা হয়েছিল। তবে এটি কোনো বাণিজ্যিক রেলপথ ছিল না।

এর ঠিক দু’ বছর পরে মুম্বাই থেকে থানে পর্যন্ত ৩৩ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণকাজ সমাপ্ত হয়। ১৮৫৩ সালের ১৬ই এপ্রিল, ট্রেন চলাচলের মাধ্যমে রেললাইনটি উদ্বোধন করা হয়। এটাই ছিল ব্রিটিশ ভারতে রেলওয়ের প্রথম যাত্রা। সাহিব, সিন্ধ এবং সুলতান নামে তিনটি বাষ্পীয় লোকোমোটিভ দ্বারা ব্রিটিশ ভারতে সর্বপ্রথম রেলওয়ে পরিষেবার সূচনা ঘটে।

এদিকে হাওড়া থেকে রানীগঞ্জ পর্যন্তু রেললাইন নির্মাণকাজের দায়িত্ব গ্রহণ করে ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি। এই রেলপথ নির্মাণ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে হাওড়া থেকে হুগলি পর্যন্ত ৩৮ কিলোমিটার রেললাইনের নির্মাণ কাজ সমাপ্ত হয় ১৮৫৪ সালে। সে বছরেরই ১৫ আগস্ট লাইনটি উদ্বোধন করা হয় এবং ট্রেন চলাচল শুরু করে। সকাল ৮:৩০ মিনিটে হাওড়া স্টেশন থেকে ট্রেন ছেড়ে হুগলিতে পৌঁছায় ১০:০১ মিনিটে। যাত্রা পথে ৩৮ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে মোট সময় ব্যয় হয় ৯১ মিনিট। এই ছিল ব্রিটিশ বাংলায় সর্বপ্রথম ট্রেন চলাচল।

ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানির সংক্ষিপ্ত বিবরণ

বাংলায় সর্বপ্রথম রেলওয়ে এসেছে ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানির হাত ধরে। এ কোম্পানি সর্বপ্রথম বাংলায় রেলপথ নির্মাণের জন্য ভূমি জরিপ, ভূপ্রকৃতি যাচাই, রেলপথ নির্মাণের খরচ এবং রেলপথ নির্মাণের ফলে সুবিধা সম্পর্কে সমীক্ষা চালায়।

১৮৪৫ সালের শুরুর দিকে ম্যাকডোনাল্ড স্টিফেনসন তার তিনজন সহকারীসহ ভারতীয় উপমহাদেশে পর্যবেক্ষণে আসেন। সর্বপ্রথম তারা মির্জাপুর হয়ে কলকাতা থেকে দিল্লী পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের জন্য খরচ এবং সামগ্রিক বিষয় পর্যালোচনা করেন। তারা পর্যবেক্ষণ করে দেখতে পান, প্রতি মাইল ডুয়েল গেজ রেললাইন নির্মাণের জন্য খরচ হবে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার পাউন্ড। এই প্রতিনিধি দল লন্ডনে ফেরত গিয়ে ব্রিটিশ সরকারের কাছে সে অনুযায়ী প্রতিবেদন জমা দেন। এই পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করেই লন্ডনে ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি প্রতিষ্ঠার জন্য প্রস্তাব পাশ করা হয়। তারপরই লন্ডনে এ কোম্পানির জন্য তহবিল সংগ্রহ করা শুরু হয়।

১৮৪৫ সালের ১১ জুন, ভারতীয় উপমহাদেশের অন্যান্য রেলপথ নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের মতো লন্ডনে ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে প্রতিষ্ঠা করা হয়। প্রতিষ্ঠাকালে কোম্পানিটির নাম ছিল ‘দি ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি’। সমসাময়িককালে সমগ্র ভারতবর্ষে রেলপথ নির্মাণের জন্য বেশ কয়েকটি রেল কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল; যেমন- মুম্বাই থেকে থানে পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের জন্য গ্রেট ইন্ডিয়ান পেনিনসুলা রেলওয়ে কোম্পানি, দক্ষিণ ভারতে রেলপথ নির্মাণের জন্য সাউথ ইন্ডিয়া রেলওয়ে, মধ্য ভারতে রেলপথ নির্মাণের জন্য বারোডা অ্যান্ড সেন্ট্রাল ইন্ডিয়া রেলওয়ে এবং উত্তর পশ্চিমাঞ্চলে রেলপথ নির্মাণের জন্য নর্থ ওয়েস্ট রেলওয়ে কোম্পানি। প্রাথমিক পর্যায়ে এসব কোম্পানি ছিল ইউরোপীয় পুঁজি ও ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি প্রতিষ্ঠার পর লন্ডনে ১৩ জন সদস্য নিয়ে এ কোম্পানির পরিচালনা পরিষদ গঠন করা হয়। সেখানে ম্যাকডোনাল্ড স্টিফেনসন ছিলেন কোম্পানির প্রথম ব্যবস্থাপনা পরিচালক। ম্যাকডোনাল্ড স্টিফেনসন পেশায় ছিলেন একজন প্রকৌশলী। ব্রিটিশ বাংলায় রেলপথ নির্মাণের জন্য এই লোকটির বেশ বড় ভূমিকা ছিল। যার স্বীকৃতিস্বরূপ ব্রিটিশ সরকার তাকে ‘স্যার’ উপাধিতে ভূষিত করে।

প্রতিষ্ঠাকালে কোম্পানির মূলধন ছিল ৪০ লক্ষ পাউন্ড, যার বেশিরভাগই ছিল লন্ডনে পুঁজিবাদের বিনিয়োগকৃত অর্থ। সেই সময় ইউরোপে রেল বিপ্লব সংঘটিত হওয়ার ফলে রেলশিল্পে ব্যাপক বিনিয়োগ আসতে থাকে। কাজেই কোম্পানিটিকে পুঁজি সংগ্রহে খুব বেশি বেগ পেতে হয়নি।

১৮৫৯ সাল পর্যন্ত কোম্পানিটির অধীনে ৭৭টি ইঞ্জিন, ২২৮ যাত্রীবাহী কোচ এবং ৮৪৮টি মালবাহী ওয়াগন ছিল। ১৮৫১ থেকে ১৮৬৩ সাল পর্যন্ত ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি ভারতবর্ষে যতগুলো রেল ট্রাক নির্মাণ করেছিল, তার সবগুলোতেই প্রধান প্রকৌশলী হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন জর্জ টার্নবুল। এজন্য ৭ই ফেব্রুয়ারি, ১৯৬৩ সালে ভারতীয় অফিশিয়াল গেজেটে তাকে ‘ভারতের প্রথম রেলওয়ে ইঞ্জিনিয়ার’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

বলা হয়ে থাকে, ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি ভারতবর্ষে রেলওয়েতে এক নতুন যুগের সূচনা করেছিল। হাওড়া থেকে রানীগঞ্জ পর্যন্ত সফলভাবে রেললাইন নির্মাণকাজ সমাপ্ত করার পর কোম্পানিটি বিভিন্ন রুটে রেললাইন নির্মাণ কাজ শুরু করে; যেমন- ১৮৫৯ সালে কানপুর থেকে এলাহাবাদ, ১৮৬২ সালে হাওড়া থেকে দিল্লি, ১৮৬৬ সালে দিল্লি থেকে আগ্রা এবং ১৮৬৭ সালে এলাহাবাদ থেকে জবলপুর পর্যন্ত রেললাইন নির্মিত হয়। ১৮৭৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর, এক গেজেটের মাধ্যমে ব্রিটিশ ভারত সরকার ইস্ট ইন্ডিয়া রেলওয়ে কোম্পানি কিনে নেয়। ফলে কোম্পানিটি শতভাগ সরকারি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়।

ভারতবর্ষে ব্রিটিশরা তাদের নিজেদের ব্যবসায়িক স্বার্থে রেলপথ নির্মাণ করেছিল, এতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু এর মাধ্যমেই ভারতবর্ষে যোগাযোগ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন ঘটেছিল। ব্রিটিশদের হাত ধরে রেলপথ নির্মাণের মাধ্যমে ভারতবর্ষে আধুনিক ও দ্রুততম যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রতিস্থাপিত হয়। ফলে ব্যবসা-বাণিজ্য, শিল্প এবং শিক্ষাখাতে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটে। যার সুবিধা এদেশের মানুষও ভোগ করতে থাকে। কাজেই রেলওয়ের প্রচলন ছিল ভারতবর্ষের জন্য আশীর্বাদস্বরূপ, একথা নিশ্চিত করেই বলা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

fifteen + 4 =

Translate »