মেসির সঙ্গে সম্পর্কেই বার্সা ছাড়তে হয়েছে সুয়ারেসকে

বার্সেলোনায় থাকাকালীন লিওনেল মেসির সঙ্গে খুব ভালো বন্ধুত্ব ছিল লুইস সুয়ারেসের। পারিবারিকভাবেও দুই লাতিন ফরোয়ার্ডের সম্পর্ক ছিল অত্যন্ত চমৎকার।

তবে কি সেই বন্ধুত্বই কাল হয়ে দাঁড়াল সুয়ারেসের জন্য? উরুগুইয়ান ফরোয়ার্ড অবশ্য নিজেই জানিয়েছেন তেমনটি। ৩৩ বছর বয়সীর বিশ্বাস, মেসির সঙ্গে চমৎকার সম্পর্কের কারণেই তাকে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের কাছে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয় বার্সা।

রোনাল্ড কোম্যান ক্যাম্প ন্যুয়ে নতুন কোচ হিসেবে নিযোগ পাওয়ার পরপরই সুয়ারেসকে নতুন ঠিকানা খুঁজে নিতে বলেন। কাতালানরাও আর দেরি করেনি। ৬ বছর ধরে যিনি ক্লাবকে এতোকিছু দিলেন, সেই তারকার বিদায়টা সুখকর হয়নি একেবারে। কোনো বিদায়কালীন অনুষ্ঠানও হয়নি ৬ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফারে ওয়ান্দা মেত্রোপোলিতানোতে যাওয়া সুয়ারেসের জন্য।

কাতালুনিয়ার পাঠ চুকিয়ে পরিবার নিয়ে মাদ্রিদে বসত গড়া সুয়ারেসের খুবই কষ্ট হয়েছিল পুরনো ঠিকানা ছাড়তে। বার্সাকে বিদায় জানানোর সময় কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন তিনি। নতুন ড্রেসিংরুমে যে তিনি পাবেন না বন্ধু মেসিকে। এইউএফ টিভিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সে কথা জানিয়েছেন সুয়ারেস, ‘এটা কঠিন ছিল কারণ তা ছিল আবেগের মিশ্রণ। ’

তবে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ডের সঙ্গে গলায়-গলায় বন্ধুত্বকে বার্সা ছাড়ার কারণ হিসেবে উল্লেখ করে সুয়ারেস ক্রীড়ামাধ্যম ইএসপিএন’কে বলেন, ‘আমি মনে করি, তারা আমাকে মেসির পাশ থেকে সরাতে চেয়েছিল। সম্ভবত মেসির সঙ্গে আমার ভালো সম্পর্ক তাদের বিরক্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। সম্ভবত তারা আমার সঙ্গে তাকে বেশিদিন দেখতে চায়নি। যদিও এই সম্পর্ক দলকে নষ্ট করতে পারে এমন কোনো কারণ আমি খুঁজে পাইনি। ’

বন্ধুর বিদায়ে বার্সার ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন মেসিও। তার আগে এলএমটেন নিজেও ক্যাম্প ন্যু ছাড়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছিলেন। কিন্তু পরে আরও এক বছর কাতালুনিয়ায় থাকার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। হয়তো চলতি মৌসুম শেষে বার্সার সঙ্গে সম্পর্কের ইতি টানতে পারেন রেকর্ড ছয়বারের ব্যালন ডি’অর জয়ী তারকা।

তবে সুয়ারেস মনে করেন, মেসি বার্সায় থেকে যেতে পারেন। আর সেক্ষেত্রে নতুন বোর্ডের ইঙ্গিত দিলেন তিনি। আর যদি মেসি যেতেও চান, তার জন্য তাকে সম্মানের সঙ্গে যেতে অনুমতি দেওয়া মনে করেন উরুগুইয়ান তারকা, ‘বার্সা ছাড়ার ব্যাপারে তাদের উচিৎ তার সিদ্ধান্তকে সম্মান জানানো। সম্ভবত তার অন্য ক্লাবের হয়ে খেলার সম্ভাবনা আছে। তবে বার্সায় যদি নতুন বোর্ড হয় সেখানে সে আরামবোধ করবে ও সুখি হবে। সে ক্লাবে থাকতে চায়। ’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *