অবিশ্বাস্য হার বা জয়ের উত্তর খুঁজছে না কেউ!

কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব যেন নতুন প্রতিজ্ঞা নিয়ে নেমেছে। প্রতি ম্যাচেই তারা নানা উপায়ে হারের পথ দেখাচ্ছে। কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে আজ যেমনটা দেখাল। প্রতিপক্ষকে ১৬৪ রানে আটকে দেওয়ার পরও তারা হেরেছে ২ রানে।

হারের ব্যবধানটা বেশ ছোট। কিন্তু এ ম্যাচ হারতে পারে পাঞ্জাব, এটাই তো অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছিল একপর্যায়ে। কিন্তু সেই অসম্ভবকেই সম্ভব করেছে তারা। হাতে ৫ উইকেট থাকা সত্ত্বেও লোকেশ রাহুল ও তাঁর দলবল হেরে গেছে। প্রথম সাত ম্যাচের ছয়টিতেই হারের পর কোনো উত্তর খুঁজে পাচ্ছেন না দলটির অধিনায়ক রাহুল।

আইপিএলের প্রথম ম্যাচে আম্পায়ারের ভুলে হেরে বসেছিল পাঞ্জাব। সে ম্যাচটা টাই হলে সুপার ওভারে গড়ায় ম্যাচ। সেটায় হেরে বেশ ক্ষোভ জানিয়েছিলেন দলটির যৌথ মালিক প্রীতি জিনতা। পরের ম্যাচ জিতেও গিয়েছিল তারা। কিন্তু এরপর থেকেই শুধু হারছে তারা। টানা পাঁচ হারের পর আর কোনো অজুহাত দিতে রাজি নন লোকেশ রাহুল। আজ ম্যাচ শেষে তাই হারের কারণ খুঁজতে গিয়ে কিছু পেলেন না এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান, ‘আমরা কাছাকাছি যাচ্ছি, ভালো শুরু করছি এবং…সত্যি বলতে আমার কাছে কোনো উত্তর নেই। পরের সাত ম্যাচে আমাদের আরও আক্রমণাত্মক হতে হবে।’

পাঞ্জাবের বোলাররা ম্যাচটা দখলে নিয়ে এসেছিল। বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং কলকাতাকে ১৬৪ রানের বেশি করতে দেয়নি। রাহুল ও তাঁর ওপেনিং সঙ্গী মায়াঙ্ক আগারওয়াল তো পারলে নিজেরাই ম্যাচটা শেষ করে এনেছিলেন। উদ্বোধনী জুটি ১১৪ রান এনে দিয়েছিল। ১ উইকেটে ১৩৬ রান ছিল পাঞ্জাবের। সে ম্যাচেই এমন ভরাডুবি। এমন এক ম্যাচে বোলারদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন অধিনায়ক, ‘আমরা দারুণ বল করেছি। এটা নতুন উইকেট ছিল ফলে কোনটা ভালো লেংথ বা ভালো লাইন সেটা জানা ছিল না। কিন্তু বোলাররা দ্রুত মানিয়ে নিয়েছে এবং ভালো বল করেছে। আমরা ওদের কাছে এটাই চাচ্ছিলাম। শুরুতে বল সুইং করাতে বলেছিলাম এবং পাওয়ার প্লেতে উইকেট নেওয়ার চেষ্টা করতে বলা হয়েছিল। এভাবেই প্রতিপক্ষের ১৮০ রান করা আটকানো সম্ভব। ডেথ ওভারেও ওরা সাহস দেখিয়েছে।’

এত প্রশংসার পরও যখন দল হারে তখন এর দায় তো কাউকে নিতেই হয়। শেষ ৪ ওভারে মাত্র ২৯ দরকার ছিল। ৯ উইকেট হাতে রেখেও সেটা তুলতে পারেনি দল। হারের পেছনে তাই ব্যাটসম্যানদের দায়টাই দেখছেন পাঞ্জাব অধিনায়ক, ‘ম্যাচের কোনো পর্যায়েই আমরা আত্মতৃপ্তিতে ভুগিনি। জয় পেলেই তৃপ্তি পাবেন আপনি। আমরা শুরুটা খুব ভালো করেছিলাম। মায়াঙ্ক দারুণ করেছে এবং জুটিটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল। শেষ দিকে আমরা টানা উইকেট হারিয়েছি। এমন হলে ম্যাচ জেতা কঠিন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.