রিফাত হত্যার পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ, ঢাকার পথে মিন্নির বাবা

বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি প্রকাশ করেছেন বিচারিক আদালত। আজ শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ৪২৯ পৃষ্ঠার রায়ের কপি প্রকাশ করে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ছয় আসামির পরিবারকে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বরগুনা দায়রা জজ আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা গোলাম সারওয়ার রাত ৮টার দিকে বলেন, ‘রিফাত শরীফ হত্যা মামলার পূর্ণাঙ্গ রায়ের কপি ছয় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির পরিবারকে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া হাইকোর্টে এ মামলার নথি আগামীকাল রোববার পাঠানো হবে।’

এদিকে রায়ের কপি নিয়ে আপিল করতে রাতেই ঢাকায় রওনা হয়েছেন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আয়শা সিদ্দিকা মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর। চলতি সপ্তাহে আসামিরা হাইকোর্টে আপিল দায়ের করবে। রায়ের কপি পাওয়ার সাত কার্যদিবসের মধ্যে এ আপিল করতে হবে।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁর মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। তবে জানা গেছে, তিনি কাল সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্নার  চেম্বারে আসবেন।

বরগুনায় মিন্নির আইনজীবী অ্যাডভোকেট মাহবুবুল বারী আসলাম বলেন, ‘শনিবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে মিন্নির বাবা রায়ের কপি হাতে পেয়েছেন। কপি পাওয়ার পরপরই তিনি ঢাকার উদ্দেশে বরগুনা ছেড়েছেন। সময় স্বল্পতার কারণে রায়ে আদালত কী উল্লেখ করেছেন তা পড়তে পারিনি। তবে মিন্নির বাবা আগামীকাল রোববার উচ্চ আদালতে আপিলের জন্য আবেদন করবেন বলে আমাকে বলেছেন।‘

গত ৩০ সেপ্টেম্বর আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁসির আদেশ দেন বরগুনা দায়রা জজ আদালত। বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে চার আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মো. রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী (২৩), আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন (২১), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয় (২২), মো. হাসান (১৯) ও আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি (১৯)। একই মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছেন আদালত।

রায়ে খালাসপ্রাপ্ত চার আসামি হলেন মো. মুসা (২২), রাফিউল ইসলাম রাব্বি (২০), মো. সাগর (১৯) ও কামরুল হাসান সাইমুন (২১)।

গত বছরের ২৬ জুন প্রকাশ্যে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয় রিফাত শরীফকে। মামলার ২৪ আসামির মধ্যে নিহত রিফাতের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিসহ প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় ঘোষণা করেন জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামান। যদিও মামলার প্রধান আসামি মো. সাব্বির আহম্মেদ নয়ন ওরফে নয়নবন্ড পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন এবং অন্য একজন আসামি মো. মুসা পলাতক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *