নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

মে মাসে একাধিক গুরুতর অভিযোগ এনে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা করেছিলেন বলিউডের গুণী অভিনেতা নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকীর স্ত্রী আলিয়া ওরফে অঞ্জনা কিশোর পাণ্ডে। মামলায় তিনি খোরপোষের দাবিও করেছেন। সে সময় আইনি নোটিশে অভিনেতা ও তাঁর পরিবারের বিরুদ্ধে একাধিক গুরুতর অভিযোগ করা হয়েছে। এবার স্ত্রী অভিযোগ করলেন নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকী তাঁকে ধর্ষণ করেছেন। আর তাঁর সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।

আলিয়ার আইনজীবী ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বলেছেন, ‘আমার মক্কেল আলিয়া ভারসোভা থানায় এ নিয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। নওয়াজুদ্দিন, তাঁর মা, ভাইসহ তাঁর পরিবারের চার সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তিনি।’ এর আগে নওয়াজুদ্দিনের ভাইয়ের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ এনেছিলেন আলিয়া। বিবাহবিচ্ছেদের মামলাও করেছেন নওয়াজের বিরুদ্ধে। তাঁর বিরুদ্ধে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭৫, ৩৭৬(কে), ৩৭৬(এন), ৪২০ ও ৪৯৩ ধারায় মামলা দায়ের করেছেন আলিয়া। যদিও নওয়াজের ভাই শামস নওয়াব সিদ্দিকীর দাবি, সবই নওয়াজের কাছ থেকে আলিয়ার অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার চক্রান্ত। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘চাইলে আরও ১০–১২টা মামলা করেন। কিন্তু আমাদের আড়াই কোটি টাকা ফেরত দিন। নইলে আমরাও আদালতে যাব।’

১৯ মে আলিয়া বিবাহবিচ্ছেদের নোটিশ পাঠান নওয়াজকে। এর ১৫ দিন পরও নওয়াজের তরফে কোনো উত্তর আসেনি। এমনকি নওয়াজ তাঁকে টাকা পাঠানো বন্ধ করে দেন বলে অভিযোগ আলিয়ার। যার ফলে বাচ্চাদের স্কুলের বেতনও দিতে পারেননি তিনি। নানাভাবে তিনি নওয়াজের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পারেননি। আলিয়ার অভিযোগ, নওয়াজ তাঁর সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। এমনকি তাঁকে অকথ্য ভাষায় অপমানও করেছেন।

এত দিন পর তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা এসব অভিযোগ অস্বীকার করে উত্তর দিলেন নওয়াজ। যদিও নওয়াজুদ্দিন নিজে সরাসরি উত্তর দেননি। উত্তর দিয়েছেন তাঁর আইনজীবী আদনান শেখ। তিনি বলেছেন, ‘আমার মক্কেল প্রতি মাসে তাঁর সন্তানদের পড়াশোনা ও যাবতীয় খরচ পাঠান। তার প্রমাণও রয়েছে। এমনকি ব্যাংকের সব কিস্তিও তিনিই দেন। সেই কাগজও রয়েছে। আলিয়া ইচ্ছা করে নওয়াজের নামে এসব মিথ্যা অপবাদ দিচ্ছেন। সর্বসমক্ষে তাঁকে ছোট করছেন।’ নওয়াজ তাঁর আইনি নোটিশে আরও লেখেন, আলিয়াকে এরপর লিখিত দিতে হবে যে এরপর তিনি নওয়াজের বিরুদ্ধে কোনো রকম মানহানিকর মন্তব্য করবেন না। এমনকি যে যে মিথ্যা মন্তব্য করেছেন, তা–ও প্রত্যাহার করে নেবেন। নইলে নওয়াজের দল আলিয়ার বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেবে।

আলিয়া-নওয়াজের দাম্পত্য ১১ বছরের। সম্পর্ক ১৭ বছরের বেশি। তাঁদের ঘরে আছে এক মেয়ে ও এক ছেলে—শোরা ও ইয়ানি সিদ্দিকী। একটি জাতীয় সংবাদ সংস্থাকে আলিয়া বলেছিলেন, ‘বিয়ের এক বছর পর, ২০১০ সাল থেকেই আমার আর নওয়াজের মধ্যে সমস্যা শুরু হয়। এত দিন আমি সব সামলে নিচ্ছিলাম। তবে এখন সবকিছু হাতের বাইরে চলে গেছে।’ ডিভোর্সের পাশাপাশি নিজের পুরোনো নাম ফিরে পাওয়ার আইনি প্রক্রিয়াও শুরু করে দিয়েছেন আলিয়া। আলিয়া অবশ্য নওয়াজের প্রথম স্ত্রী নন। এর আগে শাহিবা নামের এক নারীর সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল নওয়াজের। সেই বিয়ে ছয় মাসও টেকেনি।

ছোট্ট চরিত্রে অভিনয় করতে করতে আজ বড় তারকা হয়েছেন নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকী। ‘মাঝি: দ্য মাউন্টেন ম্যান’ ছবিতে অসাধারণ অভিনয় করে নিজের জাত চিনিয়েছিলেন এই অভিনেতা। সে সময় টুইটারে নওয়াজুদ্দিন সম্পর্কে শত্রুঘ্ন সিনহা লিখেছিলেন, ‘নওয়াজুদ্দিন এ শতকের সেরা আবিষ্কার’। তাঁর দীর্ঘ পথ ছিল কাঁটা বিছানো। বাস্তবে তাঁর বেড়ে ওঠাও এই দশরথ মাঝির জীবনের মতোই। এমন দিনও গেছে, যখন তাঁকে ধনেপাতা বিক্রি করতে হয়েছে। এক সাধারণ কৃষক পরিবারের সন্তান হয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন বলিউডে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *