ইয়েমেনকে সামরিক প্রযুক্তি সরবরাহ করেছে ইরান

ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল ফাজল শেকারচি জানিয়েছেন, যুদ্ধ বিধ্বস্ত ইয়েমেনকে শুধু সামরিক প্রযুক্তি সরবরাহ করা হয়েছে, দেশটিতে কোনো সেনা পাঠায়নি ইরান।

মঙ্গলবার টেলিভিশনের এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “ইয়েমেন এবং ওই অঞ্চলে হস্তক্ষেপ করার জন্য ইরান সেনা উপস্থিতি ঘটিয়েছে বলে যে দাবি করা হচ্ছে তা সঠিক নয়। আমরা শুধু তাদের সঙ্গে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে প্রযুক্তিগত অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছি। তারা নিজেরাই এখন ক্ষেপণাস্ত্র, ড্রোন এবং অন্যান্য অস্ত্র বানানোর কৌশল রপ্ত করেছেন।”

জেনারেল আবুল ফাজল বলেন, ইরান ইয়েমেনকে ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহ করেনি। আমরা ইয়েমেনিদের সঙ্গে আমাদের জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছি।”
ইরানের এ সেনা কর্মকর্তা বলেন, শত্রুরা ইয়েমিনেদরকে যেভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করছে বাস্তবতা তা নয় বরং ইয়েমেনের জনগণ খুবই সংস্কৃতিবান ও বুদ্ধিমান। তারাই অতি দ্রুত ক্ষেপণাস্ত্র উৎপাদন ও অত্যাধুনিক ড্রোন বানিয়েছেন। এছাড়া তারা ইলেক্ট্রেনিক ওয়ারফেয়ারের ক্ষেত্রেও অনেক এগিয়ে গেছেন।

জেনারেল শেকারচি বলেন, এ অঞ্চলের কোনো দেশে সামরিক উপস্থিতির পরিকল্পনা নেই ইরানের; শুধুমাত্র আধ্যাত্মিক ও পরামর্শমূলক উপস্থিতি রয়েছে ইরানের। বিভিন্ন দেশে প্রতিরোধ ফ্রন্ট ও সামরিক বাহিনী রয়েছে। আমরা তাদেরকে পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করছি। সিরিয়া, ইরাক, লেবানন ও ইয়েমেনে আমাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করার জন্য আমাদের অভিজ্ঞ বাহিনী সেসব দেশে গেছে এবং তাদেরকে সহায়তা দিচ্ছে আর ওইসব দেশের সামরিক বাহিনী ও জনগণ শত্রুদের বিরুদ্ধে ময়দানে যুদ্ধ করছেন।”

জেনারেল শেকারচি আরও বলেন, বিশ্বের যে জাতি ইসরায়েল ও আমেরিকার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে ইরান তাদেরকে সহায়তা করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *