দুই দিনের মধ্যে টিকার ট্রায়াল প্রক্রিয়া জানাবে চীনা কোম্পানি

সোমবার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে সচিব এই কথা জানান।

সচিব আবদুল মান্নান বলেন, ‘ভ্যাকসিন নিয়ে বিভিন্ন দেশের নয়টি কোম্পানি কাজ করছে। এরমধ্যে পাঁচটি কোম্পানির সঙ্গে সরকারের সার্বক্ষণিক যোগাযোগ আছে। চীনের কোম্পানিকে ট্রায়ালের অনুমোদন দিয়েছি। ব্রাজিল, ইন্দোনেশিয়া আর তুরস্কে তারা অনেক ইনভেস্ট করেছে। তারা ট্রায়াল স্টার্ট করার জন্য দুই দিনের মধ্যে চিঠি দিয়ে অফিসিয়ালি সিদ্ধান্ত জানাবে।’

সচিব বলেন, ‘আমরা আশাবাদী দ্রুততম সময়ের মধ্যে তারা এগিয়ে আসবে। তাদের কাছে জানতে চেয়েছি, কবে শুরু করবে? তারা বলেছে, ফরমাল চিঠি দেবে, যা আগামীকাল বা পরদিন হয়ত পাব। আইসিসিডিডিআর,বি সরাসরি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে।’

আবদুল মান্নান বলেন, ‘এছাড়াও ভারতের কোম্পানিও কিছু প্রস্তাব দিয়েছে। রাশিয়ার কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করেছি। তারা আমাদের ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানিগুলোকে কাজে লাগাতে চাচ্ছে। ইনসেপটা, পপুলার, বেক্সিমকো, হেলথ কেয়ার, স্কয়ারসসহ বড় কোম্পানিগুলোর কথা বলেছে তারা। বেলজিয়াম ও ফ্রান্সের কোম্পানিও আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। আমরা পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ রেখেছি প্রয়োজনে অর্থের বিনিময়ে ক্রয় করে যেন ভ্যাকসিন নিয়ে আসতে পারি। একটি বিদেশি প্রজেক্টের ১০০ মিলিয়ন ডলার অর্থ আমরা বরাদ্দ রেখেছি। এছাড়াও আরও কিছু অর্থ রাখা হয়েছে।’

সচিব বলেন, ‘আমরা প্রথমেই আড়াই থেকে তিন মিলিয়ন ভ্যাকসিন আনতে চাচ্ছি। যারা ফ্রন্টলাইনার তারা বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবে। সাংবাদিকরাও ঘরের বাইরে কাজ করছেন, তারাও গুরুত্ব পাবেন। সাধারণ মানুষের জন্য কতটা অ্যাভেইলেবল করা যায় সেটি দেখছি। তবে যারা বয়স্ক মানুষ এবং বিভিন্ন শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন তাদের আমরা অগ্রাধিকার দেব।’

শীতে করোনার প্রাদুর্ভাব বাড়তে পারে বলে যে আশঙ্কা করা হচ্ছে, এ বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালযয়ের প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে সচিব বলেন, ‘দেশে করোনা এখন সহনশীল অবস্থায় আছে। দ্বিতীয় দফায় প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে তা মোকাবিলার প্রম্তুতি আমাদের আছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *