‘সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে বাণিজ্য বাড়াতে নভেম্বরে বৈঠক’

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, সুইজারল্যান্ড বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসায়ীক অংশীদার। উভয়দেশের বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়ানোর প্রচুর সুযোগ রয়েছে। এ সুযোগকে ভবিষ্যতে কাজে লাগানো হবে। এজন্য আগামী নভেম্বর মাসে বাংলাদেশের সঙ্গে  সুইজারল্যান্ডের বৈঠক হবে।

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর নিজ কার্যালয় বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড এর সঙ্গে মতবিনিময় শেষে এ কথা বলেন তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন গড়ে তোলার কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। এগুলোর প্রায় অর্ধেকের কাজ সমাপ্তির পথে। এসব প্রজেক্টে জাপান, ভারত, চীন, কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশ বড় ধরনের বিনিয়োগ করতে এগিয়ে এসেছে। বাংলাদেশ বিনিয়োগকারীদের জন্য ট্যাক্সসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আকর্ষণীয় সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে।  বাংলাদেশ বিনিয়োগের আনুষ্ঠানিকতা সহজ ও দ্রুত করার পদক্ষেপ নিয়েছে।  বিশেষ করে ফরেন ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট (এফডিআই) আকৃষ্ট করতে বাংলাদেশ কোম্পানি আইন সময়োপযোগী করাসহ ব্যবসা সহজ করতে অন্যান্য সূচকেও প্রয়োজনীয় সংস্কার করেছে।

টিপু মুনশি বলেন, বিশ্ববাণিজ্য পরিস্থিতিতে চীন থেকে আমেরিকা, জাপানসহ অনেক দেশ তাদের শিল্প কলকারখানা রিলোকেশনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে।  দেশগুলো বাংলাদেশকে এখন বিনিয়োগের উপযুক্ত স্থান মনে করছে।  ইতিমধ্যেই জাপানের বিখ্যাত মিটশুবিসি এবং ভারতের টাটা কোম্পানি বাংলাদেশে গাড়ি তৈরি কারখানা স্থাপনের চিন্তা করছে।  সুইজারলান্ডের জন্যও বাংলাদেশ লাভজনক বিনিয়োগ স্থল হতে পারে। সুইজারল্যান্ডের ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারী দল বাংলাদেশ সফর করলে ইতিবাচক ফল পাওয়া যাবে।

বৈঠকে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত বলেন, সুইজারল্যান্ড বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে অগ্রাধিকার দেয়। বাংলাদেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে সুইজারল্যান্ড প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। উভয় দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধির সুযোগ রয়েছে এবং বাণিজ্য সম্পর্কের উন্নতি হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × five =

Translate »