বার্সা সভাপতির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

একের পর এক খবরের শিরোনাম হচ্ছে স্প্যানিশ ক্লাব বার্সেলোনা ও এর সভাপতি জোসেপ মারিয়া বার্তেমেউ। সম্প্রতি মেসির বার্সা ছেড়ে যাওয়া নিয়ে আলোচনার তুঙ্গে বার্সেলোনা। আর ক্লাব সভাপতির সঙ্গে তো এক রকম মনোমালিন্য চলছে লিওনেল মেসির। 

মেসির বার্সা ছাড়া নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন খোদ বার্তেমেউ নিজেই। এবার নতুন করে আলোচনায় এলেন বার্সা সভাপতি বার্তেমেউ। ইতিবাচক নয় শিরোনাম হয়েছেন নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনেছে কাতালান পুলিশ। দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে ক্লাবের অর্থ দিয়ে ব্যক্তিগত উদ্দেশ্য হাসিল করেছেন বলে স্প্যানিশ দৈনিক এল মুন্ডো এ খবর নিশ্চিত করেছে।

জানা যায়, এর আগেও নানা দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছিলেন বার্তেমেউ। ২০১৭ সালে ক্যাম্প ন্যুয়ে নিজের আধিপত্য বিস্তার ও ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে আইথ্রি নামের এক গণসংযোগ প্রতিষ্ঠানকে অর্থ দিয়েছিলেন বার্তেমেউ। উদ্দেশ্য ছিল বার্সা কিংবদন্তিদের নামে অপপ্রচার চালানোর।

গেল ফেব্রুয়ারিতে কে থি জোগাস নামের এক কাতালান গণমাধ্যম বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাতে দাবি করা হয়, ক্লাব সভাপতি বার্তেমেউ ক্যাম্প ন্যুয়ে নিজের আধিপত্য বিস্তার ও ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে আইথ্রি নামের এক গণসংযোগ প্রতিষ্ঠানকে অর্থ দেয়। যা ‘বার্সাগেট’ কেলেঙ্কারি নামে পরিচিতি পায় বিভিন্ন গণমাধ্যমে। সে সময় কার্লোস ‍পুয়োল, জাভি হার্নান্দেজ, লিওনেল মেসি, জেরার্ড পিকে, কোচ পেপ গার্দিওলার নামে সেসব অপপ্রচার চালানোর জন্য অভিযোগের আঙুল ওঠে বার্তেমেউর দিকে।

তবে সেবার ‘বার্সাগেট’ কেলেঙ্কারি থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন স্প্যানিশ জায়ান্ট ক্লাবটি। নিরপেক্ষ তদন্তে বেরিয়ে আসে, লিওনেল মেসিসহ ক্যাম্প ন্যুয়ের অন্যান্য কিংবদন্তির নামে ক্লাব প্রেসিডেন্ট জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউর অপপ্রচার চালানোর বিষয়টি গুজব ছাড়া আর কিছুই নয়।

তবে বার্তেমেউ’র বিষয়টি ভালোভাবে নেয়নি বার্সেলোনা বোর্ড। তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি ব্যবস্থা গ্রহণের হুমকিও দিয়েছিল স্প্যানিশ জায়ান্টরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *