মুক্তি পেলেন ২০ বছর কনডেম সেলে থাকা শেখ জাহিদ

প্রায় ২০ বছর ধরে কনডেম সেলে থাকার পর আপিল বিভাগের রায়ে মুক্তি পেলেন শেখ জাহিদ। সোমবার সন্ধ্যায় খুলনা জেলা কারাগার থেকে তাকে মুক্তি দেয়া হয়। ২০ বছর পর মুক্তি পেয়ে আবেগে কেঁদে ফেলেন তিনি।

এ সময় জাহিদ বলেন, কখনো ভাবিনি যে ছাড়া পাবো। আমি নির্দোষ ছিলাম। কারাগারে ২০ বছর অনেক কষ্টে কেটেছে।

জেল ফটকে শেখ জাহিদকে নিতে আসেন তার বোন জামাই আজিজুর রহমান। আজিজুর বলেন, মামলার সময় তদন্ত কর্মকর্তা আমাদের কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা চেয়েছিলেন। টাকা দিতে না পারায় সব জেনেও সেলিমের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেন। বিনা অপরাধে ২০ বছর কারাগারে কাটালেন জাহিদ।

খুলনা কারাগারের সুপার মো. ওমর ফারুক জানান, উচ্চ আদালত থেকে মামলার নথি কারাগারে এসে পৌঁছালে সন্ধ্যায় তাকে মুক্তি দেয়া হয়।

এর আগে গত মঙ্গলবার মৃত্যুদণ্ড থেকে খালাস পান তিনি। আপিল মঞ্জুর করে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন ছয় সদস্যের আপিল বেঞ্চ এ রায় দেন।

১৯৯৭ সালের ১৫ জানুয়ারি রাতে বাগেরহাটের ফকিরহাট থানার উত্তরপাড়া এলাকার ভাড়া বাসায় রহিমা ও তার দেড় বছরের কন্যাশিশু রেশমা খুন হন। ওই খুনের দায়ে জাহিদ এত বছর কারাগারে ছিলেন। আদালতে জাহিদের পক্ষে রাষ্ট্রনিযুক্ত (স্টেট ডিফেন্স) আইনজীবী হিসেবে শুনানিতে অংশ নেন সারোয়ার আহমেদ। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ।

তবে ডেপুটি অ্যার্টনি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ সাংবাদিকদের বলেন, পূর্ণাঙ্গ রায়ের অনুলিপি পেয়ে তা পর্যালোচনা করে পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *