পোর্টল্যান্ডে সহিংসতায় ট্রাম্প-বাইডেনের পাল্টাপাল্টি দোষারোপ

যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগনের পোর্টল্যান্ডে শনিবার বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভকারী ও ট্রাম্প সমর্থকদের সংঘর্ষে একজন মারা যান। ওই ঘটনার পর প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্রেটিক দলীয় প্রার্থী জো বাইডেনের মধ্যে শুরু হয়েছে কথার লড়াই। একে অন্যকে বিদ্ধ করছেন তীব্র বাক্যবাণে।

পোর্টল্যান্ডের এই সহিসংতাকে অগ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেছেন বাইডেন। ‘ইচ্ছাকৃতভাবে উৎসাহিত করা’ এ সহিংসতা থামাতে ট্রাম্পকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন ওবামা প্রশাসনের সাবেক এই ভাইস প্রেসিডেন্ট।

এক বিবৃতিতে ৭৭ বছর বয়সী প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বলেছেন, ‘যে কারও মাধ্যমে যে কোনও ধরনের সহিংসতার তীব্র নিন্দা জানাই আমি, সেটা ডান হোক আর বামপন্থি হোক। ডোনাল্ড ট্রাম্পকেও আমি একই কাজ করতে চ্যালেঞ্জ করছি। আমরা এমন দেশ চাই না যেখানে নিজেদের মধ্যে যুদ্ধ হয়।’

এরপরই ট্রাম্পকে কটাক্ষ করেছেন বাইডেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কি মনে করেন তিনি আমাদের সমাজে ঘৃণা ও বিভক্তির শিখায় আগুন জ্বালিয়ে দেবেন এবং রাজনীতি নিয়ে ভয়ের কারণে সমর্থকদের উসকে দেবেন? তিনি বেপরোয়াভাবে সহিংসতাকে উৎসাহিত করছেন।’ তিনি আরও বলেছেন, ‘(ট্রাম্প) হয়তো বিশ্বাস করেন আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে টুইট তাকে শক্তিশালী করে তুলবে, কিন্তু সহিংসতায় জড়িয়ে পড়তে তার সমর্থকদের থামাতে ব্যর্থ হওয়া দেখিয়ে দিলো তিনি কতটা দুর্বল।’

মিনিয়াপোলিসের শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তার নিপীড়নে গত ২৫ মে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড মারা যাওয়ার পর থেকে বর্ণবাদ ও পুলিশি বর্বরতার বিরুদ্ধে আন্দোলন সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তিন মাসেরও বেশি সময় ধরে প্রত্যেক রাতে পোর্টল্যান্ডে বিক্ষোভকারীরা সমাবেশ করছেন। তবে শনিবার ট্রাম্পের সমর্থকরা তাদের ওপর হামলা চালালে একজন নিহত হন।

বাইডেনের মন্তব্যের আগেই রোববার সকালে ট্রাম্প পোর্টল্যান্ডের মেয়র টেড হুইলারকে এই সহিংসতার জন্য দায়ী করে টুইট দেন। শহরে মৃত্যু ও ধ্বংসের জন্য মেয়রকে দোষারোপ করেছেন প্রেসিডেন্ট, ‘মেয়রের বোকামির কারণে পোর্টল্যান্ড কখনও স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে না।’ বাইডেনের বিরুদ্ধে তার অভিযোগ, ‘সহিংসতা নিরসনের কোনও ইচ্ছা নেই।’

অবশ্য ট্রাম্পের সমালোচনায় মুখ বুজে থাকেননি হুইলার। ট্রাম্প ঘৃণা ও বিভক্তি তৈরি করেছে বলে মন্তব্য পোর্টল্যান্ড মেয়রের, ‘আমার কাছে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য ব্যাপার হবে যদি প্রেসিডেন্ট আমাদের সমর্থন করেন কিংবা এই নরকের পরিবেশ তৈরি করা থেকে দূরে থাকেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × 4 =

Translate »