আয়াক্সের ডে বিক আসছে ম্যান ইউতে

গত কয়েক মাস ধরে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে কে আসবেন, এ ব্যাপারে যার নাম সবচেয়ে বেশি শোনা যাচ্ছিল, তিনি ইংলিশ উইঙ্গার জাডন সানচো। দাম নিয়ে এখনো ইউনাইটেড ও সানচোর ক্লাব ডর্টমুন্ডের বনিবনা হয়নি। ফলে সানচো কবে আসবেন ইউনাইটেডে, আদৌ আসবেন কি না, কেউ জানে না।

তবে সানচো না আসলেও, ইউনাইটেড সমর্থকদের মন খারাপ করার কিছু নেই। আয়াক্স থেকে প্রতিভাবান ডাচ মিডফিল্ডার ডনি ফন ডে বিককে আনছে তারা। গত বছর চ্যাম্পিয়নস লিগে সবাইকে চমকে দেওয়া আয়াক্সের অন্যতম প্রধান খেলোয়াড় ছিলেন ডে বিক। সে মৌসুমের পর ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং, ম্যাথিস ডে লিট, হাকিম জিয়াশ, ল্যাসে শোনে, জোয়েল ভেল্টমানের মতো তারকারা ক্লাব ছেড়ে অন্যান্য ক্লাবে পাড়ি জমালেও, ফন ডে বিক আয়াক্সেই ছিলেন। প্রথমে শোনা গিয়েছিল, রিয়াল মাদ্রিদে যেতে পারেন তিনি। করোনাভাইরাসের কারণে পরে সে দলবদলটা হয়নি। কিছুদিন আগেও শোনা গিয়েছিল, বার্সেলোনার নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যান হয়তো বার্সায় নিয়ে যাবেন ফন ডে বিককে। কিন্তু সেটাও হয়নি। ফলে সুবিধা হয়ে গিয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের। ৪ কোটি পাউন্ডের বিনিময়ে ওল্ড ট্রাফোর্ডে পাড়ি জমাচ্ছেন এই আক্রমণাত্মক মিডফিল্ডার।

৪ কোটি ডাউন্ডে ওল্ডট্র্যাফোর্ড যাচ্ছেন বিক।

এর মধ্যে চুক্তি কয় বছরের হবে, বেতন কত হবে, সে ব্যাপারে ঐক্য মত্যে পৌঁছেছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ফন ডে বিক। ইউনাইটেডের দেওয়া ৪ কোটি পাউন্ডের প্রস্তাবও কোনো ধরনের আলোচনা ছাড়াই সরাসরি মেনে নিয়েছে ডাচ ক্লাবটা। আয়াক্সের ক্রীড়া পরিচালক হিসেবে বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন ইউনাইটেডের সাবেক কিংবদন্তি গোলরক্ষক এডউইন ফন ডার সার। ফলে এ ক্ষেত্রে ইউনাইটেডের একটি সুবিধাই হয়ে গিয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। আগামী সপ্তাহে দলবদল নিশ্চিত করার জন্য শারীরিক পরীক্ষায় অংশ নেবেন ফন ডে বিক।

২০১৮-১৯ মৌসুমের চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে, টটেনহামের বিপক্ষে প্রথম লেগে গোল করেছিলেন ফন ডে বিক। যদিও দুর্ভাগ্যজনকভাবে দ্বিতীয় লেগে হেরে গিয়ে ফাইনালের স্বপ্ন জলাঞ্জলি দিতে হয় আয়াক্সকে। কোয়ার্টার ফাইনালে জুভেন্টাসের বিপক্ষে গোল করে সেবার রোনালদোদের প্রতিযোগিতা থেকে বিদায় করে দেওয়ার কাজে সাহায্য করেছিলেন এই ফন ডে বিক। বড় ম্যাচে নিয়মিত গোল দেওয়ার এক অভ্যাস আছে এই তারকার। তবে ব্রুনো ফার্নান্দেস বা পল পগবাকে হটিয়ে ইউনাইটেডের মূল আক্রমণাত্মক মিডফিল্ডার হিসেবে ফন ডে বিক কীভাবে নিজের জায়গা করে নেন, সেটাই দেখার বিষয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *