রোনালদো-সুয়ারেজ নাকি নেইমার-সুয়ারেজ?

মেসি-ঝড়ে টালমাটাল বার্সেলোনা। শুধু তাই নয়, ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ সময় কাটাচ্ছেন মেসির প্রিয় প্রিয় বন্ধু লুইস সুয়ারেজও। নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যান জানিয়ে দিয়েছেন, আগামী মৌসুমের জন্য তাঁর পরিকল্পনায় সুয়ারেজের স্থান নেই। ফলে নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছেন এই স্ট্রাইকার। সুয়ারেজকে এই অনিশ্চয়তার হাত থেকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসতে পারে মেসির চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর বর্তমান ক্লাব জুভেন্টাস।

বার্সার মতো জুভেন্টাসও আগামী মৌসুমে খেলবে নতুন কোচের অধীনে। মরিজিও সারির জায়গায় কোচ হিসেবে এসেছেন কিংবদন্তি সাবেক মিডফিল্ডার আন্দ্রেয়া পিরলো। এসেই বেশ কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি, ঠিক যেমন কোম্যান নিচ্ছেন বার্সেলোনায়। কোম্যান যেমন বার্সায় জানিয়ে দিয়েছেন, সুয়ারেজের ভবিষ্যৎ নেই, একই কাজ পিরলো করেছেন অভিজ্ঞ আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার গঞ্জালো হিগুয়েইনের ক্ষেত্রে। আগামী মৌসুমের জন্য হিগুয়েইনকে দরকার নেই, সাফ জানিয়ে দিয়েছেন পিরলো। এমনকি তাঁর সঙ্গে চুক্তি বাতিলও করে দিচ্ছে জুভেন্টাস, ঠিক যেমনটা শোনা যাচ্ছে সুয়ারেজ-বার্সেলোনার ক্ষেত্রে। পিরলো নিজেই কিছুদিন আগে নিশ্চিত করেছেন খবরটা।

হিগুয়েইন জুভেন্টাস ছেড়ে চলে গেলে নতুন একজন স্ট্রাইকার লাগবে ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নদের। আর সেই নতুন স্ট্রাইকার হতে পারেন সুয়ারেজ। জুভেন্টাস ও ইতালিভিত্তিক বেশ কিছু সাংবাদিক গতকাল খবর দিয়েছেন, সুয়ারেজকে জুভেন্টাসে আনার ব্যাপারে আগ্রহী পিরলো। তবে তাঁরা অপেক্ষা করছে কখন বার্সেলোনা সুয়ারেজের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করে। কারণ, চুক্তি বাতিল করলে দলবদল ফি বাবদ বার্সেলোনাকে কিছু দেওয়া লাগবে না জুভেন্টাসের, সুয়ারেজকে বিনা মূল্যে নিয়ে আসা যাবে। আর তা করতে পারলে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো-লুইস সুয়ারেজ স্বপ্নের জুটি দেখতে পারবেন ফুটবলপ্রেমীরা।

২০১৪ সালে লিভারপুল থেকে বার্সেলোনায় যোগ দেওয়া সুয়ারেজ ২৮৩ ম্যাচ খেলে ১৯৮ গোল করেছেন। চারটি লা লিগা ও একটি চ্যাম্পিয়নস লিগসহ বার্সার হয়ে ছয় মৌসুমে ১৩টি শিরোপা জিতেছেন উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার। এই মৌসুমেই সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ২১ গোল করেছিলেন তিনি। তাও বার্সার কাছে সেটা যথেষ্ট বলে মনে হচ্ছে না।

এদিকে নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে মানুষের এত কানাঘুষা পছন্দ হচ্ছে না সুয়ারেজের। গতকাল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ইনস্টাগ্রামে তাই লিখেছেন, ‘আমাকে নিয়ে আর আমার পক্ষ নিয়ে মানুষ কথা বলছে। কিন্তু এদের অনেকের সঙ্গে আমার অনেক বছর ধরে কোনো সম্পর্কই নেই।’ উপযাচক হয়ে তাঁকে এমন কথা বলার দরকার নেই বলেই জানিয়ে দিয়েছেন সুয়ারেজ, ‘আমার যখন প্রয়োজন হবে তখন আমি নিজেই কথা বলব।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *