সিনহা হত্যা: এপিবিএন সদস্যের স্বীকারোক্তি

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলায় ৫ম দিনের রিমান্ডে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) এক সদস্য। বুধবার (২৬ আগস্ট) কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম (টেকনাফ-৩) তামান্না ফারাহ-এর খাস কামরায় এই জবানবন্দী রেকর্ড করা হয়।

এপিবিএন-এর এ সদস্যকে বিকাল সাড়ে ৪টায় র‌্যারের তদন্তকারী কর্মকর্তার নেতৃত্বে একটি দল আদালতে নিয়ে আসেন। এর পরপরই তাকে নেয়া হয় বিচারকের খাস কামরায়। ওখানে টানা সাড়ে ৩ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে জবানবন্দী রেকর্ড করা হয়। রাত ৮টা ১৫ মিনিটের দিকে তাকে বের করে নিয়ে যাওয়া হয় জেলা কারাগারে।

এ ব্যাপারে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেননি কেউই। তবে আদালতের একটি সূত্র জানিয়েছে, এপিবিএন সদস্য আব্দুল্লাহ এ জবানবন্দী প্রদান করেন।

এর আগে গত ১৭ আগস্ট জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাবের একটি দল এপিবিএন-এর ৩ সদস্যকে হেফাজতে নেন। এরপর ১৮ আগস্ট বেলা সাড়ে ১২টায় এদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে তোলা হয়। ওই র‌্যাবের তদন্তকারী কর্মকর্তা ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানালে কক্সবাজারস্থ জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম (টেকনাফ-৩) তামান্না ফারাহ’র আদালত ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গত ২২ আগস্ট এদের নিয়ে যাওয়া হয় র‌্যাব হেফাজতে।

অপর ২ জন হলেন- এপিবিএনের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) শাহজাহান, কনস্টেবল রাজীব। ঘটনার দিন ৩১ জুলাই এ তিন জনই এপিবিএনের চেকপোস্টে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফের মারিশবুনিয়া পাহাড়ে ভিডিওচিত্র ধারণ করে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকার নীলিমা রিসোর্টে ফেরার পথে শামলাপুর তল্লাশি চৌকিতে গুলিতে নিহত হন মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *