‘সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন’ বার্সা প্রেসিডেন্ট

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার-ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে রেকর্ড ব্যবধানে হারের পর তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে বার্সেলোনা। দলটির ডিফেন্ডার জেরার্দ পিকেও যেমন সামনের পথচলায় অনেক পরবর্তনের প্রয়োজন দেখছেন। কাতালান ক্লাবটির প্রেসিডেন্ট জোজেপ মারিয়া বার্তোমেউও দিলেন তেমনি আভাস। কিছু সিদ্ধান্ত এরই মধ্যে নেওয়া হয়েছে বলে জানালেন তিনি।

লিসবনে শুক্রবার রাতে জার্মান চ্যাম্পিয়নদের কাছে ৮-২ গোলে বিধ্বস্ত হয় বার্সেলোনা। বায়ার্নর হয়ে জোড়া গোল করেন টমাস মুলার ও ফিলিপে কৌতিনিয়ো। একটি করে রবের্ত লেভানদোভস্কি, সের্গে জিনাব্রি, ইভান পেরিসিচ ও জশুয়া কিমিচ। বার্সেলোনার একমাত্র গোলদাতা লুইস সুয়ারেস, অন্যটি আত্মঘাতী।

দুই অর্ধে চারটি করে গোল হজম করে বার্সেলোনা। প্রতিপক্ষের গতি, কৌশলের কোনো জবাবই ছিল না তাদের। ভঙ্গুর রক্ষণ, ছন্নছাড়া মাঝমাঠ আর লিওনেল মেসির বিবর্ণ দিনে আক্রমণভাগ ছিল না বললেই চলে। বায়ার্নের বেশ কিছু সহজ সুযোগ নষ্ট না হলে হারের ব্যবধান হতে পারতো আরও অনেক বড়।

ম্যাচের ফল বিব্রতকর, মেনে নেওয়ার মতো নয়। মাঠে বার্সেলোনার আরও কিছু বিষয় ছিল ভীষণ দৃষ্টিকটু। এর অন্যতম, তাদের খেলা দেখে মনে হয়েছে নির্দিষ্ট কোনো পরিকল্পনা ছিল না। ডাগআউট থেকেও কোচ কিকে সেতিয়েনকে কোনো নির্দেশনা দিতে দেখা যায়নি। অধিকাংশ সময় হতবিহ্বল হয়ে তাকিয়ে থাকতে দেখা যায় আগে থেকেই সমালোচনার মুখে থাকা এই কোচকে।

ছবি: বার্সেলোনা

ছবি: বার্সেলোনা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নক-আউট পর্বের ইতিহাসে এত বড় ব্যবধানে আগে কেউ কখনও হারেনি। ১৯৪৬ সালের পর এই প্রথম কোনো ম্যাচে আট গোল হজম করে দলটি।ম্যাচ শেষে মুভিস্টারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে হতাশা প্রকাশ করেন ক্লাবটির প্রেসিডেন্ট। জানান, পরিবেশ কিছুটা শান্ত হলে পরিবর্তনের ঘোষণা আসবে।

“এটা খুব, খুব কঠিন একটা রাত। বার্সা সমর্থক, সদস্য, খেলোয়াড়…সকলের জন্য আমি দু:খিত। আজ(শুক্রবার) যেটা হলো, আমরা এমন দল নই। আমি খুবই বেদনাহত।”

“কিছু সিদ্ধান্ত আমরা ইতোমধ্যে নিয়ে রেখেছি, বাকিগুলো আগামী কয়েক দিনের মধ্যে নেওয়া হবে। আগামী সপ্তাহ থেকে ঘোষণা আসতে থাকবে। সবকিছু শান্ত হওয়ার পর আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *