আইসিইউতে সঞ্জয় দত্ত

অভিষেক বচ্চনের করোনামুক্ত হওয়ার খবর দিয়ে গতকাল শনিবার বলিউডের দিন শুরু হয়েছিল। কিন্তু রাতেই বলিউড থেকে এল খারাপ খবর, মারাত্মক শ্বাসকষ্ট নিয়ে একই হাসপাতালে ভর্তি হলেন বলিউডের আরেক প্রজন্মের আলোচিত তারকা সঞ্জয় দত্ত।

গতকাল সন্ধ্যায় লীলাবতী হাসপাতালে ভর্তি করা হলো বলিউডের ‘মুন্না ভাই’কে। জানা গেছে, বিকেল থেকে অস্বস্তি বোধ করছিলেন একসময়ের এই দাপুটে নায়ক। সন্ধ্যার দিকে সমস্যা তীব্র হতে থাকে। তাঁকে হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে। লীলাবতী হাসপাতালের চিফ অপারেটিং অফিসার ড. ভি রবিশঙ্কর জানিয়েছেন, তাঁর পরিস্থিতি স্থিতিশীল।

ইন্ডিয়ান টাইমস, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, এনডিটিভিসহ বেশ কিছু ভারতীয় গণমাধ্যমের অনলাইন সংস্করণ হাসপাতালের সূত্র দিয়ে প্রকাশ করেছে, সঞ্জয় দত্তের শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা কমে গিয়েছিল, সে কারণে বুকে অস্বস্তি বোধ করেন তিনি। তাঁকে দ্রুত লীলাবতী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাঁর করোনা পজিটিভ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে, সে কারণে পরীক্ষার জন্য তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। তবে প্রাথমিক পরীক্ষায় তিনি কোভিড–১৯ পজিটিভ নন বলে ধারণা করছেন চিকিৎসকেরা। তাই তাঁকে নন-কোভিড ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। সঞ্জয়ের ব্যক্তিগত চিকিৎসক জলিল পারকারের বরাত দিয়ে এসব গণমাধ্যম জানিয়েছে, কেন অভিনেতার শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা ওঠানামা করছে, তা জানতে বেশ কিছু পরীক্ষা করা হবে।

গত ২৯ জুলাই নিজের ফার্স্ট লুক শেয়ার করে সঞ্জয় দত্ত ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘এই ছবিতে কাজ করতে পারাটা আমার কাছে অত্যন্ত সৌভাগ্যের এবং এর চেয়ে সেরা বার্থডে গিফট আমার জন্য আর কিছু হতে পারে না। ধন্যবাদ প্রশান্ত নীল এবং ছবির পুরো টিমকে এবং অবশ্যই সবচেয়ে বেশি ধন্যবাদ আমার ভক্তদের, যাঁরা আমাকে এত ভালোবাসেন এবং সমর্থন করেন।’

প্রসঙ্গত, সঞ্জয় দত্ত অভিনীত ‘সড়ক টু’ ছবিটি ডিজনি-হটস্টারে মুক্তির অপেক্ষায় আছে। মহেশ ভাট পরিচালিত এই ছবিতে সঞ্জয় দত্ত ছাড়াও পূজা ভাট, আলিয়া ভাট, আদিত্য কাপুর আছেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের আসন্ন ছবি কে জি এফ চ্যাপ্টার-টুয়ের ফার্স্ট লুক পোস্টার শেয়ার করেন অভিনেতা। ছবি: ইনস্টাগ্রামসঞ্জয় দত্তকে যেখানে ভর্তি করা হয়েছে, সেই লীলাবতী হাসপাতালেই ভর্তি ছিলেন করোনায় আক্রান্ত অমিতাভ, অভিষেক, ঐশ্বরিয়া ও অমিতাভের নাতনি আরাধ্য। গত ১১ জুলাই অমিতাভ ও অভিষেক করোনায় সংক্রমিত হয়ে মুম্বাইয়ের নানাবতী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। প্রাথমিকভাবে বাড়িতে চিকিৎসা চললেও শ্বাসকষ্ট হওয়ায় ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন ও আরাধ্যকে গত ১৭ জুলাই নানাবতী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ১১ দিন পর ২৮ জুলাই করোনামুক্ত হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পান ঐশ্বরিয়া ও আরাধ্য। তবে চিকিৎসা চলছিল সিনিয়র ও জুনিয়র বচ্চনের। ২ আগস্ট অমিতাভের মুক্তি মেলে। গতকাল ছেলের বাড়ি ফেরার খবরটিও আনন্দের সঙ্গে শেয়ার করেছেন কোটি ভক্ত-অনুরাগীর সঙ্গে।

অভিষেকের ঘরে ফেরায় কিছুটা হলেও স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছিল বচ্চন পরিবার এবং বলিউড বিনোদনজগৎ। কিন্তু দিন শেষে ফের আর এক তারকা অসুস্থ হওয়ায় আবারও অস্বস্তি নেমে এসেছে। তবে সঞ্জয়কে নন-কোভিড ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে, আপাতত স্বস্তির

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

20 − eleven =

Translate »