গরু কম ও দাম বেশি , ক্ষুব্ধ ক্রেতারা

গেল দুবছর ন্যায্য দামে গরু বিক্রি করতে না পেরে অনেক ব্যাপারীকে মন খারাপ করে ঢাকা ছেড়ে ফিরতে দেখা গেছে। তবে এ বছর করোনা ও বন্যার কারণে ঢাকায় গরু নিয়ে ব্যাপারী কম আসায় ভালো দাম পাচ্ছেন তাঁরা। বিপরীতে গরু কম ও দাম বেশি বলে কিছুটা ক্ষুব্ধ ক্রেতারা।

গরু বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ভোররাত ৩টার মধ্যে রাজধানীর গরুর হাটগুলো থেকে বেশির ভাগ গরু বিক্রি হয়ে যায়। ঢাকার বড় গরুর হাট গাবতলী, আফতাবনগর ও পুরান ঢাকার ধূপখোলা মাঠের অন্তত ১০ জন গরুর ব্যাপারী প্রথম আলোকে জানিয়েছেন, এবার ভালো দামে গরু বিক্রি করতে পেরে তাঁরা অনেক খুশি। গত দুবছর অনেক গরু ব্যাপারীর লোকসান হয়েছে।

গেল দুবছর ন্যায্য দামে গরু বিক্রি করতে না পেরে অনেক ব্যাপারীকে মন খারাপ করে ঢাকা ছেড়ে ফিরতে দেখা গেছে। তবে এ বছর করোনা ও বন্যার কারণে ঢাকায় গরু নিয়ে ব্যাপারী কম আসায় ভালো দাম পাচ্ছেন তাঁরা। বিপরীতে গরু কম ও দাম বেশি বলে কিছুটা ক্ষুব্ধ ক্রেতারা।

গরু বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে ভোররাত ৩টার মধ্যে রাজধানীর গরুর হাটগুলো থেকে বেশির ভাগ গরু বিক্রি হয়ে যায়। ঢাকার বড় গরুর হাট গাবতলী, আফতাবনগর ও পুরান ঢাকার ধূপখোলা মাঠের অন্তত ১০ জন গরুর ব্যাপারী প্রথম আলোকে জানিয়েছেন, এবার ভালো দামে গরু বিক্রি করতে পেরে তাঁরা অনেক খুশি। গত দুবছর অনেক গরু ব্যাপারীর লোকসান হয়েছে।

ভালো দামে গরু বিক্রি করতে পেরে খুশি ব্যবসায়ী বজলুর রহমান। ছবি: আসাদুজ্জামানঝিনাইদহ থেকে শনির আখড়ায় ৮টি গরু আনেন সিদ্দিকুর রহমান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘গতবারও আমি এই শনির আখড়া হাটে গরু নিয়ে এসেছিলাম। কিন্তু ভালো দামে গরু বিক্রি করতে পারিনি। তবে এবার আমার লাভ হয়েছে। গরু কম থাকায় ভালো দামে গরু বিক্রি করতে পেরেছি।’

এবার ভালো দামে গরু বিক্রি করে হাসিমুখে ঢাকা থেকে গরুর ব্যাপারীরা বিদায় নিলেও ঢাকার ক্রেতারা ক্ষুব্ধ। গরুর সংখ্যা কম থাকায় চড়া দামে গরু কিনতে বাধ্য হচ্ছেন তাঁরা। তাঁদের একজন চানখাঁরপুলের মাসুদ মিয়া। পাঁচটি হাট ঘুরে গরু না পেয়ে পুরান ঢাকার ধোলাইখালে আসেন তিনি। মাসুদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘মাঠে গরুর সংকট থাকায় যে গরুর দাম ১ লাখ টাকা, তা দেড় লাখ টাকা চেয়ে বসে থাকছেন গরুর ব্যাপারীরা। গরু ব্যবসায়ীদের কাছে আমরা এবার জিম্মি হয়ে গেছি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 + eleven =

Translate »