রুশ হ্যাকাররা কোভিড-১৯ টিকার ‘গবেষণা তথ্য চুরির চেষ্টা করছে’

রাশিয়ার হ্যাকাররা করোনাভাইরাসের টিকার গবেষণা তথ্য চুরির চেষ্টা করছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য এবং কানাডা।

এই তিন দেশের নিরাপত্তা সংস্থাগুলো বৃহস্পতিবার এ সতর্কবার্তা দিয়ে বলেছে, করোনাভাইরাসের টিকা তৈরির চেষ্টা করে যাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে রুশ হ্যাকাররা নিশানা করছে।

যুক্তরাজ্যের জাতীয় সাইবার নিরাপত্তা কেন্দ্র (এনসিএসসি) বলেছে, এই হ্যাকাররা রুশ গোয়েন্দা সংস্থার হয়ে কাজ করছে তা ‘প্রায় নিশ্চিত’। তবে কোন কোন সংস্থাগুলোকে নিশানা করা হয়েছে বা কোনও তথ্য আদৌ চুরি গেছে কিনা তা জানায়নি এনএসসিএস।

ওদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থা (এনএসএ) বলেছে, রাশিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা সংশ্লিষ্ট ‘কজি বেয়ার’ নামে পরিচিতি পাওয়া এপিটি২৯ হ্যাকার গ্রুপ মহামারীর সংকটময় পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোকে নিশানা করে টিকা গবেষণার গোয়েন্দা তথ্য চুরির চেষ্টা করছে।

হ্যাকাররা একাজে স্পিয়ার-ফিশিং এবং ম্যালওয়ার ব্যবহার করছে। এর মাধ্যমে তারা যুক্তরাজ্য, কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্রের কোভিড-১৯ টিকা তৈরি নিয়ে কাজ করা সংস্থাগুলোর কম্পিউটারে গোপনে ঢুকে তথ্য হাতানোর চেষ্টা চালাচ্ছে, বলছে নিরাপত্তা সংস্থাগুলো।

যুক্তরাজ্যের সাইবার নিরাপত্তা কেন্দ্র এনসিএসসি’র পরিচালক পল বলেছেন, “করোনাভাইরাস মহামারী মোকাবেলায় যারা গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে চলেছে, তাদের বিরুদ্ধে এমন ন্যাক্কারজনক হামলার নিন্দা জানাচ্ছি।”

রাশিয়ার সরকার সংশ্লিষ্ট ‘কজি বেয়ার’ দুর্ধর্ষ একটি হ্যাকার গ্রুপ। ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের সময় ডেমোক্র্যাটিক ন্যাশনাল কমিটির তথ্য হ্যাকিংয়ের ঘটনায় রুশ হ্যাকার গ্রুপ ‘ফ্যান্সি বেয়ার’ এর পাশাপাশি কজি বেয়ারের নামও জড়িয়েছিল।

গোয়েন্দা তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার জন্য সরকারি, কূটনৈতিক প্রতিষ্ঠানসহ, পরামর্শদাতা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যসেবা এবং জ্বালানি সংস্থাগুলোকেও নিশানা করার দীর্ঘ ইতিহাস আছে এপিটি২৯ হ্যাকার গোষ্ঠীর।

“একারণে প্রত্যেককেই এ হুমকিকে গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়ার তাগাদা দেওয়া হচ্ছে” বলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের এনএসএ’র সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক পরিচালক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.