উয়েফার ক্ষমা চাওয়া উচিত: গুয়ার্দিওলা

ম্যানচেস্টার সিটির ইউরোপীয় প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার পর উয়েফাকে ক্ষমা চাইতে বলেছেন পেপ গুয়ার্দিওলা। একই সঙ্গে ইয়ুর্গেন ক্লপ ও জোসে মরিনিয়োর মন্তব্যের জবাবও দিয়েছেন স্প্যানিশ এই কোচ।

উয়েফা ক্লাব লাইসেন্স সংশ্লিষ্ট ও ফিন্যান্সিয়াল ফেয়ার প্লের (এফএফপি) নিয়ম ভাঙায় প্রিমিয়ার লিগের গত দুইবারের চ্যাম্পিয়নদের গত ফেব্রুয়ারিতে দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল উয়েফা। তবে, কোর্ট অব আর্বিট্রেশন অব স্পোর্টস (সিএএস) সোমবার এক বিবৃতিতে জানায়, এমন কোনো নিয়ম ভাঙেনি ক্লাবটি।

উয়েফার তদন্তে ঠিকমতো সাহায্য না করায় ক্লাবটিকে একই সঙ্গে তিন কোটি ইউরো জরিমানাও করেছিল ইউরোপীয় ফুটবলের নিয়ন্তা সংস্থাটি। তাদের এই অভিযোগ অবশ্য টিকে গেছে, তবে জরিমানার অঙ্ক তিন কোটি থেকে কমিয়ে এক কোটি ইউরো করেছে সিএএস।

সর্বোচ্চ ক্রীড়া আদালতের রায়ের পর মঙ্গলবার প্রথমবারের মতো সংবাদমাধ্যমের সামনে এ নিয়ে কথা বলেন সিটির কোচ গুয়ার্দিওলা। উয়েফার অভিযোগের কারণে ক্লাবের সম্মান ক্ষুণ্ণ হয়েছে বলে মনে করেন তিনি।

“অর্থ একটা বিষয় হতে পারে হয়তো। তবে জোসে (মরিনিয়ো) ও অন্য কোচদের জানা উচিত আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলাম। আমাদের কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত (উয়েফার)। কারণ আমি আগেও বলেছি, আমরা দোষ করে থাকলে শাস্তি মেনে নিতাম।”

“যখন আমরা বিশ্বাস করি, আমরা সঠিক কাজ করেছি, তখন নিজেদের জন্য লড়াই করার অধিকার আমাদের আছে। স্বাধীন বিচারক এটাই বলেছেন।”

লিভারপুল কোচ ক্লপ বলেছেন, সিটির নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার দিনটি ফুটবলের জন্য ভালো কিছু নয়। আর টটেনহ্যাম হটস্পার কোচ মরিনিয়োর মতে, ব্যাপারটি ‘লজ্জাজনক।’ গুয়ার্দিওলা তাদের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেছেন।

“গতকাল (সোমবার) ছিল ফুটবলের জন্য ভালো একটি দিন। কারণ ইউরোপের অন্য দলগুলোর মতো আমরাও এফএফপির নিয়মের মধ্যে থেকেই খেলি। যদি আমরা এফএফপির নিয়ম ভাঙি আমরা নিষিদ্ধ হব।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *